1958সালের 5জুলাই বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর থানার অন্তর্গত রাণীখামার গ্রামে এক সম্পন্ন কৃষক পরিবারে কবি তারাশংকর চক্রবর্তী জন্মগ্রহণ করেন। মায়ের নাম আশালতা ও বাবার নাম রসময় চক্রবর্তী। এ পর্যন্ত প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা 35টি।"আলোর শিশু "নামের শিশুসাহিত্যের একটি পত্রিকা কুড়ি বছর ধরে সম্পাদনা করছেন। পেয়েছেন অনেক সাহিত্য সম্মাননা।2018সালে বাংলাদেশের রংপুরে আন্তর্জাতিক ছড়া সাহিত্য সম্মেলনে ভারতবর্ষের শিশুসাহিত্যিক হিসেবে ডাক পান এবং অংশগ্রহণ করেন। সাঁওতালি ভাষায় অলচিকি হরফেও সাহিত্য সাধনা করে চলেছেন।

ল্যাতাজি সুবাষ আর মলয় মাহতোর কথা

হঁঃ !

য্যাতই তুমিই তুমরা শালা
আগুন হুয়েঁ চট—
আজ তেইশা জানয়ারি
ইট্য তারই ফট
হঁঃ ! হঁঃ ! ইট্য তারই ফট
সুবাষবাবুর ফট
হামদের সুবাষ বোসের ফট !

হঁঃ  !

হুঁই য্যা দ্যাখঅ —
কাপাস পারা মুঞে
কিমহন পারা আ’ল
মিষ্টি হাসির ঝলকানিতে
কয়লা-কালি-কাল
যায় সইরে যায়
যায় সইরে যায়
ময়লা য্যাতই ঢাল ।

হঁঃ  !

হুঁই য্যা দ্যাখঅ—
ঠুঁইকছে স্যালুট
ডাইন চ’খের হুঁই লিচে
ডাইন হাতকে ঘুরাই আন্যে
ডাইন বাগে হঁঃ ঘিঁচে—
কিমহন পারা পশাক পইরে
বাগের পারা থাব্বা
সিংহর পারা থাব্বা
বাব্বা  !

হঁঃ  !

হুঁই য্যা দ্যাখঅ—
বুক চিতায়েঁ
তাল মিলায়েঁ পায়েঁ
ল্যাফট – রাইট
ল্যাফট – রাইট
ডাইনে ইবং বাঁয়েঁ
আজাদ হিন্দের ফৌজ লিয়েঁ ফৌজ
চইলছে শহর – গাঁয়েঁ ।

হঃঁ  !

উই ত হুল্য ল্যাতাজি  !
হামদের মহান ল্যাতাজি
ভারতমায়ের ব্যাটা —
উয়ার গায়েঁই বেইমানরা
পঁচা মাছের প্যাঁটা
ফালে দিয়ে কম জ্বালাল ?
কম ভুগাল অরা
দ্যাশ ভাঙনের মন্তে স্বাধীন
আইনল্য দ্যাশের খরা  !
নাই ভাত
নাই শিক্ষা আ’ল
ওষুদ পথ্যি নাই
হিঁই স্বাধীনের স্বাদ লিয়েঁ বঞ্
কুথ্থায় সোবে যাই ?
কাটমানি আর ব্যালেকমানির
চইলছে লড়হাই মঞ্চে
মন্তীরা সোব যায় ব্যাড়হাতে
মা সারদার লঞ্চে ।
ই–শালারা ট্যাকার দালাল
আলাল য্যাত চ্যালায়
স্বাধীনতার মহান সুখে
কাটমানিরই খ্যালায়
ব্যালেকমানির খাচ্ছে মাখন
মজছে মদের ম্যালায়।
হেই–ল্যাতাজি  !
ইটাই কী আজ স্বাধীনতা ?
স্বাধীনতার স্বাদ ?
ভাগাড় কইরে ই–দ্যাশকে
কইরছে য্যা বরবাদ ।
আজ তেইশা জানয়ারি
জন্ম দিবস বঠে—
তুমহার জন্ম দিবস বঠে
তুমহার কথা ভাবে ভাবে
হুদকে য্যা মন উঠে
(হামার) হুদকে পেরাণ উঠে  !
কুথ্থায় গ্যালে ই–দ্যাশ ছাড়্যে ?
কুথ্থায় গ্যালে তুমহি ?
তুমহার লাইগে কাঁইন্দছে স্বদেশ
কাঁইন্দছে ভারত ভূমহি ।
লতায় পাতায় কাঁইন্দছে আকাশ
বাতাস কাঁইন্দে দূরে
ফিরাই আস হে ল্যাতাজি
সোবার হিদয় পুরে ।
হুঁই য্যা দ্যাখঅ—
দাঙ্গা লাইগে
দাঙ্গা লাগায় ল্যাতা
রাম রহিমের রক্ত ঝরে
খবর রাইখে কে-তা ?
ভণ্ড ল্যাতায় দ্যাশ ছায়েঁ যায়
ঘর পুইড়ে দিন-রাতে
মদের মুলুক চইলছে দ্যাশে
কাজ নাই আজ হাতে !
গুলিগোলায় ভোটে জিতে
মহান ল্যাতা হয়
মইরছে মানুষ চতুর দিকেই
সন্তাস আর ভয়  !
রা কাইড়তে ভয় লাইগে বাপ্
মু গঞ্জাড়ে থাকি
রেপ হয়ে খুন মা ম্যায়ারা
স্বাধীনতার ফাঁকি
ইট্য স্বাধীনতার ফাঁকি  !
এ্যাকটা দ্যাশ দুটা হুঁয়েই
ইখন হুল্য তিনটা
তাথেও কী বাপ দাঙ্গা থামে ?
ক্যামনে যাবে দিনটা ;
দ্যাশ ভাঙনের ভাগ লিয়েঁ সোব
বিঁধল য্যা আলপিনটা
সিটা লিয়েঁই ভাবতে থাকি
আসছে য্যা কী দিনটা !
কী জানি কী দিনটা  !
আসছে য্যা কী দিনটা !
আজ তেইশার জানয়ারি
মাঘের বাঘা মাস
হঁঃ  !  হঁঃ  ! জাড়ের বাঘা মাস
হঁঃ  !  হঁঃ  ! তুমহার জন্ম দিবস
তুমহার কথ্থাই ভাবে হে বীর
মন হুঁয়েঁ যায় বিবশ
হামার মন হুঁয়েঁ যায় বিবশ
আজ তুমহার জন্ম দিবশ ।
এ্যাই স্বাধীনতা চাও নাই তুমহি
এ্যাই স্বাধীনতা চাও নাই ।
তুমহি চহেছিলে সমাজতন্ত
তুমহি চাহেছিলে খাদ্য
চাও নাই তুমহি স্বাধীনতা বিকে
হোকনা দ্যাশের শাদ্য ।
তাই কী তুমহাকে সরে যাতে হোল্য
তবে কী হুঁয়েছ খুন ?
তবে কী তুমহাকে মইরে যাতে হোল্য
ছিল বলে মহাগুণ ?
এ্যাত কমিশন বসায়েঁ ক্যানে হে
তুমহার হদিশ নাই
আজকে তুমহার জন্মদিনে
ইয়ার জবাব চাই ।
হামি ইটাই জবাব চাই
সোবাই সঠিক জবাব চায়
ভারত ইয়ার জবাব চায়
হঁঃ  !  হঁঃ  !  ইটাই জবাব চাই
হামি ইয়ার জবাব চাই  !