“…..বাংলা কবিতা/ বাংলা গুচ্ছকবিতা এমনকী বাংলায় শুয়েবসে লেখা কবিতাও/ আপনার পাঞ্জাবিতে লেগে থাকা মাংসের ঝোল চেটে সাফ করে দেবে।/ আর এই যে আপনি,শিফন শাড়ি আর বিপজ্জনক স্ট্র্যাপ নিয়ে পাতা ওল্টাচ্ছেন,/ আপনার মৃণালভুজে পিছলে যাচ্ছে উঠতি কবির চোখ।/”

( কবিতা : গুজবে কান দেবেন,পৃষ্ঠা-৯)

“গুজবে কান দেবেন” কি দেবেন না সে দায় তো আপনার। আপাতত গুজব ছেড়ে খবরে আসি। কবি সুজিত দাসের একক কবিতা পাঠের আমন্ত্রণ এসে পৌঁছেছে আমাদের দপ্তরে।

 সাম্প্রতিক কালের কবিতা বুঝতে, জানতে হলে কবি সুজিত দাসের কবিতা পড়তেই হবে এমন কোনো দিব্যি দেওয়ার ক্ষমতাধর আমরা নই।কবি তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থগুলিতে যে কাব্যভাষা,  চিত্রকল্প ও মায়াজগৎ নির্মাণে যে মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন তার সন্ধান একদিন প্রকৃত পাঠকেরা ঠিক খুঁজে পেয়ে যান। তারই ফলশ্রুতি কবির এই একক কবিতা অনুষ্ঠান।

কবির ভরসা ও শ্রদ্ধা আছে কবিতার পাঠকদের  ওপর। তাই তিনি কবিতার সেই ভাষা চয়ন করেন যে ভাষার সঙ্গে পাঠক সহজেই নিজেকে রিলেট করতে পারেন, নিজেকে খুৃঁজে পান।

পাঠকের প্রতি তাঁর দায়বদ্ধতা যেমন আছে তেমনি আছে কবিতার প্রতি তাঁর দায়বদ্ধতা। কোথাও অন্ত্যমিল নেই তবুও তাল, ছন্দ ও সুরের অনুরণন বাজে,বাজে কবিতা পাঠকের মননে।

বলা হয়, আজকাল আর কেউ কবিতা পড়েন না।আধুনিকতার নামে কবিতাকে ধর্ষণ করে চলেছেন কিছু মানুষ।সেসব কবিতা পাঠককে যে কষ্ট,লাঞ্ছনা দিয়েছে কেউ তার হিসেব রাখেন নি। কবি সুজিত দাস সেখানে এক বিরল ব্যতিক্রম। “একটি অনার্য কবিতা সন্ধ্যা” য় সুজিত দাসের একক কবিতাপাঠের অনুষ্ঠানে থাকতে পারেন আপনিও।