২০ সেপ্টেম্ব র ১৯৬১ পড়াশোনা মেকানিক্যাল ই ঞ্জিনিয়ারিং। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ আটটি অপ্রকাশিত ও আটটি। "বাহান্নটা টেক্কা ফিরে ফিরে আসে " কাব্যগ্রন্থের জন্য পাবলিসার্স ও বুক ফেয়ার গিল্ড এর সেরা কবি হিসাবে ২০০৬ পুরস্কৃত। প্রিয় বিষয় -বই ও আড্ডা এব ছ র প্রকাশ পাচ্ছে কবিতা ক্যাম্পাস থেকে " ছায়া সেলাই ক রা মানুষের ঠিকানা" ও " আয় চাঁদ প্রেমিকার ক পালে টি দিয়ে যা" অফবিট থেকে।
অনালোকিত পাহাড়ের সানুদেশে যদি কখনও
ঈশ্বরের দেখা পাই
সেই যে প্রদীপ জ্বেলে দারাশুকো নিরুদ্দেশ হলেন
পিলসুজের তেল প্রায় নিঃশেষিত
ধারে কাছে কোন ছায়া পসারিনী নেই
নদীও মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে নিজের শরীরে নোনা জল বহন করে
কুন্দ ফুলের সরবরাহ বন্ধ করেছে অলীক
ফুলমাসী
দেখো কেমন চারপাশ ভরে উঠছে খনিজ কলহে
গাঁইতির অসফল উল্লাস
বেড়া টপকানো মানুষ এ বঙ্গে ফেলে গেছে
তার রক্তাক্ত কলজে
যেভাবে হোক তা ঈশ্বরকে ফেরত দিতে হবে
এই ভেবে হোমারের বাসগৃহে যেতে যেতে
নেকড়ে ও নাগিনীর দরজায় টোকা এঁকে দিয়ে
এক লুব্ধ তস্করের মতো ঢুকে পড়েছি
গুগুল নামক শুঁড়ি পথ বেয়ে
না কোন ছায়াপসারিনী নেই
ঠাকুরদাস জোরে জোরে পাঠ করো
বায়ুপুরানের শেষ পরিচ্ছদ
পবিত্র শরীফ থেকে নেমে আসা ভোগলিক মেধা ও
ধোঁয়া কুন্ডলী জিজ্ঞেস করে
সব খ্যায়রিয়ত তো
কি উত্তর দেবো কে বলে দেবে