ঈশ্বরী জানে

(১)

শান্ত জলতল, সিঁড়িতে ছড়িয়ে  আছে
ক্লান্ত বিকেল  আর তার আঁচল
যে বিকেলে ডুব দিতে ইচ্ছা করে বারবার
তার থেকে পিছিয়ে যোজন  চরাচর

(২)

প্রতিমার চোখের কোণে  সবুজ কালি
শান্ত সমুদ্র, ঢেউ নেই  শুধুই  বালি
বিষাদ নামছে নদীতীর ঘুরে ঘুরে
সন্ধ্যার  নিস্তব্ধতায় এখন একা থাকতে জানি–

(৩)

তর্পণ করিনি, নেই, সেই ভাবে কোনো অজপা
মন্ত্র, উপোসে পিত্তি পড়ে  গেলে ওঠে টক জল
তার থেকে সন্তানের গ্রাস থেকে ভাত মেখে
খাইয়েছি যাকে, কেউ না হোক ঈশ্বরী  জানে

(৪)

ধর্ম নেই আমার,   নেই তাত্ত্বিক  দর্শন
শুধু পড়ে আছে   মাগরীবের আসন
বাঁচতে ইচচ্ছ করে সাথে এক মুঠ ভাত
এক ই বৃত্তের  মানুষ কেন চায় না সরল জীবন!