জন্মগত মনিপুরী, বাংলায় সমান স্বচ্ছন্দ সমরজিৎ সিংহ কবি ও ঔপ্যনাসিক। কবিতার বই ঃ ‘মাধবীলতা উৎসর্গপৃষ্ঠা’, কৃষ্ণতরল, ‘গোধূলিরচি্ত’‌, ‘এস, চাঁদ, ঝাঁপ দিই চিত্রা নক্ষত্রের ঘরে’ উপন্যাসঃ ট্রা রা রা রা, আলান্‌অন্তর্জলকথা। ছোটগল্পঃ হননমুহূর্ত, রাত্রিমথ। অনূদিত গ্রন্থঃ ভৈকম , মহম্মদ বশীরের গল্প।

নিসর্গ নয়

বুড়ো শিবতলা পার হয়ে
কোনোদিন এলে,
একটা গ্রামীণ হাট পাবে, তার পাশে
মসজিদ, মুদির দোকান, একটু এগিয়ে যেও,
দেখবে, একটা রাস্তা সোজা চলে গেছে
এটা রাস্তা নয় ।
যাকে রাস্তা ভাবে লোকে, তা আসলে নদী ।
এ নদীতে ডুবে মরেছিল ছিন্নগঙ্গা ।
এলে, দেখে যেও নদীর ভীষণ রূপ ।

সম্পর্ক

যে সকল রাতে মাস্টারবেট করি না,
সেই সব রাতগুলি অমরাবতীর ।
সকলেই জানে, অমরাবতীর থেকে, দূরে,
থাকি আমি । লোকে একে জাহান্নম বলে ।
এই জাহান্নমে, উকিল, দারোগা আছে ।
সরকারি নেতা, বিরোধী দলের নেতা, ঘুষখোর
কর্মচারি, ব্যবসায়ী, আইবুড়ো বেশ্যা
সকলেই আছে । শনিতলা, হনুমান মন্দির, শ্মশান,
পাশাপাশি রয়েছে । কবরস্থান থেকে
একটু এগিয়ে গেলে প্রাইমারি স্কুল, মসজিদ ।
এই জাহান্নমে আমি থাকি ।
তুমি থাক অমরাবতীর এক আলোকিত ঘরে,
যেখানে আমার কথা পৌঁছায় না । এই
মাস্টারবেট করার কথাও না ।

গণচাহিদা

বোনের শরীর কাল এঁটো করে গেছে
যারা, তারা আজ ভোট চাইতে এসেছে !
কাল ছিল পিস্তলের নল,
আজ শুধু ভিক্ষুকের ঝুলি !
আমার বেকার বাবা, অসুস্থ মা, বোন,
সকলে করেছি ঠিক, ও পথে যাব না !
ভোট নয়, আমরা চাইছি,
সদর দপ্তর নয়, আদালত নয়,
গণবণ্টনের মত চিরক্ষমতাকে
ভাগ করা হোক আজ ধুলির আকাশে !