৩ জুলাই ১৯৭৯ তে জন্ম দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার নামখানা গ্রামে। ২০০২ সালে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় স্নাতকোত্তর পাশ। তারপর ২০০৭ থেকে নিশ্চিন্তপুর রাখালদাস উচ্চ বিদ্যালয়ে বাংলা বিষয়ের সহশিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত। কবিতা লেখা শুরু নবম শ্রেণিতে পড়ার সময় থেকে। প্রথম সাময়িক পত্রিকাতে লেখা প্রকাশ ২০১০ সালে শারদীয় কৃষ্টি পত্রিকায়। তারপর ২০১৬ সাল থেকে নিয়মিত বিভিন্ন পত্রিকায় কবিতা প্রকাশিত হচ্ছে। যে সমস্ত পত্রিকায় লেখা প্রকাশ পেয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- নবপ্রয়াস, যুগসাগ্নিক, অন্য মধুকর, অন্য কবিতা, চিরন্তন, ভবিষ্যৎ, সমুদ্র জানালা, অনির্বাণ, কুয়াশার মন, বারোমাস, অর্বাচীন, কবিতার আলো, অন্বেষা, ইত্যাদি।  প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ - ছেঁড়া ছন্দের ধুলোবালি ( ২০১৯)।  এছাড়াও বিভিন্ন সংকলন গ্রন্থেও কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এবং কিছু ওয়েবম্যাগেও।

একাকী ছেলেবেলা 

রোজ রাতে পাখার হাওয়ায় ঘুম পাড়াই ছেলেবেলাকে। সারাদিন সঙ্গে থাকে, নিশ্চুপ অবসরে মাথায় গুঁজে দেয় স্মৃতির নড়াচড়া। বাড়ির পুরানো গেট খুলে অতিথি আসে,  খোলা বারান্দায় টেবিল সংসারে আড্ডা জমে যায়। স্নিগ্ধ বাতাসে ডিলিট হয়ে যায় দুঃখী ফাইলগুলো। পড়া ফেলে ছোটো ছোটো গল্পেরা উঁকি দেয়, বসে পড়ে কোল ঘেঁষে। সম্পর্ক বিস্তীর্ণ করে নেমে আসে মহাভারত সন্ধ্যা। ঘড়ির কাঁটা চলতে চলতে এখন এগিয়ে এসেছে মাইক্রো অবতারে। ফ্ল্যাট সাম্রাজ্যে অতিথি সৎকারের প্রয়োজন গেছে ফুরিয়ে। কে কার পাশে আলো জ্বেলে ছাদে উঠছে সে কেবল লিফট জানে। সিরিয়াল সন্ধ্যায় সন্দেহ বাড়তেই থাকে। দহন শেষে গল্পরা পাশ ফিরে ঘুমাতে যায়।
একা থাকা ছেলেবেলাকে আমিও ঘুম পাড়িয়ে রাখি। যাতে একা থাকার কষ্ট তাকে পেতে না হয়।