ফেরিওলা

ইষ্টিশানে দাঁড়িয়েছিলেম একা –
দমকা হাওয়ার মতো , যেন হলো হঠাৎ দেখা;
বাল্যবন্ধু সেই আর্মানের প্রেমের আগুন পাখি ;
এহেন প্রত্যন্ত দেশে পেতেছে সংসার ! পাখি সুখী ?
এদিকে বেচারী আর্মান –
প্রেমের পাখির জন্য, জীবনের সব মূল্যবান –
দিনগুলো, উৎসর্গ করেছে একে একে ;
শুনেছি সে নাকি আজও
অপেক্ষায় চেয়ে চেয়ে, খাঁচার দরজা খুলে রাখে |
পাখি আসে পাখি যায় –
অথচ ভুলেও জীর্ণ প্রেম তাকায় না ফিরে ;
দেখেনি কেমন আছে? কিভাবে কাটাচ্ছে দিন স্বপ্নফেরি করে…
কেমন রয়েছে আজ আর্মানের সেই বাসা খানা…
পুরাতন প্রেম আজ পেয়েছে নতুন বাসা,
তাঁর আজ নতুন ঠিকানা ।
নিজেকে শুধাই আমি, কোথায় আর্মান ?
হু হু করে চলে যায় বহুচক্রী যান ।
ষ্টেশনের ও-প্রান্ত হতে শুনি , যেন পুরাতন স্বর..
এই গলা বহু পরিচিত , বড়ো চেনা চেনা …
যেন সেই পরিচিত ডাক –
খাঁচা হাতে ফেরিওলা ! আমার নিঃশ্বাস বন্ধ প্রায়;
…বাকরুদ্ধ , আমি হতবাক !!