আমাদের বিবর্তন

আমরা কেউই কোনোদিন সঠিক ফলের গাছ চিনতে পারিনি
আমাদের শরীরের জন্য পুষ্টি দরকার । পুষ্টিতে শুদ্ধতা ।
শুদ্ধতা শব্দটির সামনে অনেক প্রশ্ন এসে দাঁড়ায় অনিবার্য
মানুষ একদিন জঙ্গলের সঙ্গে সহবাস করতো । বন্যপ্রাণীরা
স্বচক্ষে দেখেছে তাদের প্রেম দেওয়া নেওয়ার চৌষট্টিকলা
কে কাকে প্রথম শিখিয়েছিল , কেউ ভাবেনি কখনো
পাতা ঝরে যাওয়া আর গজিয়ে ওঠার মাঝে অনেক পর্ব থাকত
সেখানে তারা কিছু ধ্বনি পুঁতে রাখত , কারণ ছিল অজানা
পরে একদিন, নাম দিতে শিখল যখন , বলল এটা প্রেম
ওটা মিলন । বিচ্ছেদ শব্দটা ওদের তাড়া করেছিল অনেক পরে

এমন একটা বাড়ি

হয়তো তেমন একটা বাড়ি আছে কোথাও যার সম্পর্কে আমার কোনো ধারণা নেই
আমি মানস সরোবর কিংবা পেঙ্গুইন কিংবা নীল গাই কখনো দেখিনি
যে শরীর , যে চোখ , যে হাত নিয়ে আমাকে আমি বলে চিহ্নিত করা হয়েছে , তাকেও
একজন বাউল মাঝেমধ্যেই আসে । তার পরিবার ও পরিজনরা হয়তো
বাউলতত্ত্বে বিশ্বাস করে না। ফুলফোটা ও ঝরে যাওয়া বোঝে একরকম
কিন্তু যেকোনো প্রাণীতে মাংস ছাড়া অন্য কিছু দেখতে পায় না কখনো
রান্নাঘরের দেওয়ালে পাঁচটা তাক আছে। মাঝখানের তাকে নিশ্চিত
মশলাপাতির কৌটোগুলো আছে। পাঁচফোড়নও আছে সেখানেই
আমার এইধারণা কোনো গণিতের দ্বারা সমাধান করা যাবে না । কেউ কেউ
জানে সে বাড়ির ব্যালকনিতে সায়া, শাড়ি , ব্লাউজগুলো সূর্যকে জল খাওয়ায়।