অনন্য সৃষ্টি সাহিত্য পরিবার

পাক্ষিক প্রতিযোগিতা পর্ব – ১৭
বিষয় – প্রতিমা নয়, প্রতি মা’তেই দুর্গা
তারিখ – ২২/১০/২০২০

নারীত্বেই দেবীর অধিষ্ঠান

অগস্ত্যোদয় এলো মানেই উঠবো মেতে,
দেবী দুর্গার আশীষটুকু মাথায় পেতে;
উপচার আর নৈবেদ্যতে ভরবে থালা,
উপবাসে মা যে ঘরেই মূক ও কালা;
প্রহরণের সংখ্যা দশটি দেবীর হাতে,
দু’টি হাতেই মানবী মা কাজে মাতে;
উমার চিন্তা নেশাখোর ওই স্বামীর জন্য,
জায়া রূপে এই ধরাতে স্বামী ধন্য;
অবজ্ঞা আর অত্যাচারেই জীবন কাটে,
কান্ত তখন চলেন দর্পে এবং ঠাঁটে;
পতির পুণ্যে খুশি সতীর কৃচ্ছ্রসাধন,
পান থেকে চুন খসলেই পীড়ন-ধমক-শাসন;
অপত্যকে গর্ভে ধারণ করতে হবে,
নচেৎ বন্ধ্যা অপবাদে নারী রবে;
ভুলি সদাই নারীর মধ্যে দৈবী শক্তি,
পণের বলি বধূর মরণ ভড়ং-ভক্তি;
অম্বার সনে পুরুষরা সব তদ্গত প্রাণ,
পথিমধ্যে রমণীর যায় ইজ্জত-সম্মান;
তখন কিন্তু পৌরুষের কী প্রবল দাপট,
অসুর বোঝে অস্ত্রাঘাতের বিদ্ধ সাপট;
সংসার মাঝে ভার্যা হবে সর্বংসহা,
তার শখ-আহ্লাদ থাকবে এতো জ্বালা মহা!
শাকম্ভরীর অঙ্গে দোলে স্বর্ণাভরণ,
ধর্ষক করবে অবলাদের বস্ত্রহরণ;
পারছি কোথায় বামাকুলের সম্ভ্রম রাখতে,
মৃণ্ময়ী রূপ চাইছি কেবল মাথায় রাখতে;
মহিলাদের শ্রদ্ধা করতে যাচ্ছি ভুলে,
মঞ্চে দেবী সাজাই দামী মালা-ফুলে;
দুর্গা আছেন প্রতিমা নয় প্রতি মা-তে,
সারসত্য এই কথায় গোঁসা নরের আঁতে;
কলিযুগে কৈতববাদের হাওয়ায় ভেসে,
নিজের শাঠ্যে নিজেই যেনো উঠছি হেসে;
আর কতকাল চলবে এমন জানি না কেউ,
শক্তি পূজার জাগরণে উঠছে বেশ ঢেউ;
আছড়ে পড়লে আদৌ পারবো সামাল দিতে?
লক্ষ টাকার জবাব খুঁজলে লাগবে হিতে।