১| আলো

মধ্য রাতে বুকের উপর
শীৎকার দিচ্ছে চাঁদ
তুমি দূরালাপনিতে
ডেকে নিচ্ছ ছায়াদেহ
আমি তখন নামাবলিতে
জ্যোৎস্নার মৈথুনে মগ্ন…

২| ঘ্রাণ

জলের হৃদয় খুলে
ছুঁয়ে গেছে প্রবীণ শ্মশান
দুধের ফেনার মত ভাসে
যাবতীয় আগুনের গান
শরীর মরেও গ্যালে বেঁচে থাকে স্মৃতির আজান।

৩| কফিন

তালার জবাব খুঁজে লাশকাটা ঘর
কফিনেরা লিখে যায় হিড়িক পুরাণ
গীর্জার ফেরারি মুখ খুঁজে শুধু বিষাদিত প্রাণ।

৪| ত্রিবৃত্ত

১)
দূরালাপনি চুপচাপ, বেতারেও নেই কোনো সাড়া
হৃদয় উজাড় হলে চিতায় শপথ খুঁজে তারা।
২)
আমি ইন্দ্রপুরীর আলো পাঁজর খুঁড়ে হৃদয় খুঁজি
চলো
তোমার চোখের ভাষার মাঝে প্রণয়জ্যোতি জ্বালো।
৩)
গোলাপেরা চুপ কথা বলে যায় কাঁটা
পাহাড়িয়া মনে তীরন্দাজের ঘোর
চিঠিরা অবুঝ দোয়াত জমায় ভাষা
আগুনের খেলা সাজিয়ে রেখেছে ভোর।
ফাগুন আছে পলাশ বনে
মাতাল হৃদয় পাড়া
বসন্তটা বাঁকা চোখে
দিয়ে গেছে সাড়া।
শিশির ভেজা রাতের পালক
রোদের গায়ে জ্বর
পড়শিটা যে আড়াল থাকে
হয়েছে স্বার্থপর।
জলের মাঝে ছবি ভাসে
মেঘমালা তার নাম
ধুতরা ফুলের নেশার মত
ভালবেসেই গেলাম।