খেলা খেলা খেলা

জানি অনেক খেলা হবে।
ব্যর্থতার প্রাচীরের উপরে
সমৃদ্ধির প্রাসাদ গড়া হবে।
খেলা হবে, সমানে সমানে।
টক্করের পর টক্কর হবে।
কূটনৈতিক চাল হবে।
কেউ জিতবে কেউ হারবে।
কেউ রক্তে স্নান করবে।
বুকফাটা আর্তনাদ করবে।
উল্লাসে জয়ের হাসি হাসবে।
কেউ মসনদে বসবে।
কেউ ধুলোয় গড়াগড়ি খাবে।
কেউ হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করবে।
কেউ জান বাজি লাগাবে।
কূটনীতিতে পাল্লা দিতে
কেউ ভালো মানুষ সাজবে।
জানি অনেক খেলা হবে।
খেলার পিছনে খেলা হবে।
পাশার গুটি সাজানো হবে।
মানুষের হাড়ের পাশা খেলবে।
কেউ দ্রৌপদী হবে।
কেউ দুর্যোধন হবে।
কেউ দূঃশাসন হবে।
কেউ পঞ্চপান্ডব হবে।
কেউ ধৃতরাষ্ট্র হবে।
কেউ বা গান্ধারী হবে।
চোখে ফেটটি বাধা রবে।
কেউ শুধু দর্শক হবে।
কেউ ইন্দ্রপ্রস্থের প্রজা হবে।
যদি কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধ হতো,
যথা ধর্ম তথা জয় হত,
যদি দুষ্টের বিনাশ হত,
যদি সত্যের জয় হতো,
যদি মানুষের মধ্যে সততা থাকতো,
যদি সত্য যুগ ফিরে আসতো,
যদি মানুষ মানুষকে ভালবাসতো,
যদি গরীব ধনী ফারাক ভুলতো,
যদি তুমি সত্যের পথে চলতে,
যদি আমি সত্যের পথে চলতাম,
যদি তুমি জগতকে ভালোবাসতে,
যদি আমি জগত কে ভালবাসতাম,
তবে পাশা খেলা হতো না,
তবে শকুনি থাকতো না,
ধৃতরাষ্ট্র থাকত না,
দূর্যোধন থাকত না,
দ্রৌপদীর মান যেত না,
পৃথিবী পৃথিবী থাকত না,
পৃথিবী স্বর্গ হয়ে যেত।
এখন রাস্তার মোড়ে মোড়ে পাশা খেলা,
এখন কথায় কথায় মিথ্যাচার,
এখন কথায় কথায় বলাৎকার,
এখন কথায় কথায় খুন জখম,
মুখের কথা আর কাজে
ফারাক স্বর্গ মর্ত্যের মতন।
এখন কথায় কথায় খেলা হয়,
কখনো কেউ জিতে কেউ হারে,
কখনো কেউ বাঁচে কেউ মরে,
এ বুদ্ধির মারপ্যাঁচ নয়,
পাঁকের মধ্যে জীবন মরণ লড়াই।
কেউ পাঁকে তলিয়ে যায়,
কেউ পাক ধুয়ে সাধু হয়।
এখন কত শত ব্যাটা সাধু
তাদের হাজার হাজার চেলা,
সাধু বাবার চেয়ে বেশি
তাদের লীলা খেলা।
জানি অনেক খেলা হবে,
কেউ জিতবে কেউ হারবে,
কেউ বাঁচবে কেউ মরবে
ভাঙ্গা প্রাচীরের উপর
কেউ নতুন প্রাসাদ গড়বে।
সেই প্রাসাদের মাথার চূড়ায়
কোন রঙিন নিশান উড়বে।
আসল খেলা তখন হবে
যখন পাপের ঘড়া পূর্ণ হবে।
আসবে নেমে মহাপ্রলয়
সমস্ত পাপ ধুয়ে যাবে।
সব খেলার যে নিয়ন্ত্রক
খেলা তার নিয়ন্ত্রণে রবে।