তুমি কেন এলে সপ্তর্ষি ছেড়ে

ওগো উর্বশী, একটু ফিরে তাকাও
তুমি কেন এলে সপ্তর্ষি ছেড়ে?
দেখো, তোমার অঙ্গে লেগে আছে বিগত জীবনের কিছু স্মৃতিচিহ্ন;
যৌবনের রাজটীকা;
আর কপালে ফুলের তিলক!
জাতিস্মর হয়ে তা খুঁজে কি পাও?
কত জীর্ণ মক্ষত্রদল, পাখিদল, জরা ফুলগুচ্ছ, মৃত নুড়িপাথর
কত পাহাড়-পর্বতসারি, ধু ধু নদী
চেয়ে আছে তোমার দিকে দিগন্ত অবধি।
তোমার প্রণতি পাওয়ার আশায়!
চেয়ে আছে শতাব্দী প্রাচীন আমার ঘরের মেঘলা বিকেল রৌদ্রস্নানের নেশায়!
তুমি কি ওদের ডাক শুনতে পাও?
ওরা ঘুচাতে চায় ওদের দুঃখ, গ্লানি, মলিনতা; ফিরে পেতে চায় হৃত যৌবন
ওরা সবাই তোমার অরুণা সৌষ্ঠবে ঠিকানা লিখতে চায়।
ওগো উর্বশী, তুমি কেন এলে সপ্তর্ষি ছেড়ে?
স্বর্গাকাশ কি নির্জন-একা আজ?
ভূলোকের শূন্য থেকে বৃত্ত, অন্ধকার থেকে আলো, পাখসাটে বাতাস
সবাই তোমার সুন্দরের পূজারী হতে চায়।