স্বপ্ন-দৃশ্য, স্বপ্ন – শৃঙ্গ জয় করা – ২৯শে মে, ১৯৫৩

আজকের সম্পাদকীয়টা লেখার আগেই ভাবছিলাম এই ২৯শে মে নিয়েই এমন কোনো একটা ঘটনা লিখবো যেটা শুধুমাত্র ভারত নয়, বরং গোটা বিশ্বে একটি আলোড়ন সৃষ্টিকারী ঘটনা। আমি নিজে যেহেতু পাহাড়ে ঘুরতে ভীষণ ভালোবাসি, তাই তেনজিং নরগে আর এডমন্ড হিলারির মাউন্ট এভারেস্ট জয় করার দিনটিই প্রথম মনে এলো। সেই ১৯৫৩ সালের ২৯ মে সকাল সাড়ে ১১ টায় নিউজিল্যান্ডের এডমন্ড হিলারি এবং নেপালের শেরপা তেনজিং নরগে মাউন্ট এভারেস্টের চূড়ায় পৌঁছানোর প্রথম অভিযাত্রী হয়েছিলেন, যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২৯,০৩৫ ফুট উপরে পৃথিবীর সর্বোচ্চ পয়েন্ট। । দু’জন, একটি ব্রিটিশ অভিযানের অংশ, ৯০০ ফুট উপরে দীর্ঘ রাত কাটানোর পরে শীর্ষ সম্মেলনে চূড়ান্ত আক্রমণ চালায় এবং অবশেষে মাউন্ট এভারেস্ট জয় করতে সক্ষম হয়। তাদের কৃতিত্বের সংবাদ ২রা জুন দ্বিতীয় রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের রাজ্যাভিষেকের দিনে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে এবং ব্রিটিশরা এটিকে তাদের দেশের ভবিষ্যতের জন্য একটি শুভশ্রুতি হিসাবে স্বাগত জানিয়েছিল।
এটা লড়াইয়ের গল্প, বাঁচার তাগিদ, স্বপ্নের তিল তিল করে বেড়ে ওঠার গল্প। এভারেস্ট অভিযান আগেও হয়েছে, পরেও হয়েছে, এখনো হয়, আয়ের দেশী-ভিনদেশী বহু সিনেমার দৌলতেই আমরা এখন অভিযানের গল্পগুলি দেখতে পাই অথবা পড়তে পারি। কিন্তু মাউন্ট এভারেস্ট নেপাল এবং তিব্বতের সীমান্তে অবস্থিত এশিয়ার গ্রেট হিমালয়ের ক্রেস্টে বসে। এই যাত্রা খুব একটা সুখকর নয়, অন্তত তেনজিংদের সময়ে তো ছিলোনা। তিব্বতিদের দ্বারা চোমো-লুঙ্গমা বা “ল্যান্ডের মাদার দেবী” নামে পরিচিত, ইংরেজরা এই পাহাড়টির নাম রাখে দক্ষিণ এশিয়ার ১৯শতকের ব্রিটিশ সমীক্ষক স্যার জর্জ এভারেস্টের নামে। এভারেস্টের শিখরটি পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের বাতাসের দ্বি-তৃতীয়াংশে পৌঁছে যায় — জেট বিমানের উচ্চতা সম্পর্কে যেমনটি বলা যায় — এবং অক্সিজেনের মাত্রা খুব কম, তাপমাত্রা অত্যন্ত শীতল এবং আবহাওয়াটি অনির্দেশ্য এবং বিপজ্জনক।
শিবিরগুলির একটি সিরিজ স্থাপন করে, এই অভিযানটি ১৯৫৩ সালের এপ্রিল এবং মে মাসে তেনজিংরা এই পর্বতের উপরে উঠে যায়। খুম্বু আইসফলের মধ্য দিয়ে একটি নতুন প্যাসেজ তৈরি হয়েছিল, এবং আরোহীরা লোহসে মুখের ওপারে পশ্চিম সিডব্ল্যাম পর্যন্ত যাত্রা করেছিল এবং দক্ষিণ কর্নেল, প্রায় ২৬,০০০ ফুট। ২রামে, চার্লস ইভান্স এবং টম বর্ডিলন শীর্ষ সম্মেলনে প্রথম আক্রমণ শুরু করেছিলেন এবং এভারেস্টের শীর্ষের ৩০০ফুট ভিতরে এসেছিলেন ফিরে আসতে হয়েছিল কারণ তাদের একটি অক্সিজেন সেট নষ্ট হয়ে গিয়েছিলো।সাফল্যের সংবাদ রানার দ্বারা অভিযানের বেস ক্যাম্প থেকে নামচে বাজারের রেডিও পোস্টে পৌঁছে দেওয়া হয়েছিল এবং তারপরে কোডেড বার্তা দিয়ে লন্ডনে পাঠানো হয়েছিল, যেখানে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ তার রাজ্যাভিষেকের প্রাক্কালে প্রথম জুনে এই অর্জন সম্পর্কে জানতে পেরেছিলেন। পরের দিন, বিশ্বজুড়ে খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। এই বছর পরে, হিলারি এবং হান্ট রানী দ্বারা নাইট হিসেবে ভূষিত হয়। নর্গে, কারণ তিনি কমনওয়েলথ জাতির নাগরিক ছিলেন না, ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের একটু কম সম্মানজনক পদক পেয়েছিলেন।
ঘটনাটি অনুপ্রেরণা যোগায়, শক্তি যোগায় এগিয়ে চলার। সমস্ত বাধা বিপত্তির সম্মুখীন হয়েও কিভাবে জীবনের পথে এগিয়ে চলতে হয়। এরকম আরো বেশ কিছু ঘটনা নিয়ে আসবো হইচই- এর সম্পাদকীয়তে।
তোমাদের লেখা, আঁকা আমাদের পাঠিয়ে দাও সাহিত্য হইচই-তে। আমাদের মেইল আইডি sreesup@gmail.com / techtouchtalk@gmail.com

শ্রীতন্বী চক্রবর্তী